Contact: 8951233, +880 1911 485949
Golden Bangladesh, House#6, Road-1, Sector-4, Uttara, Dhaka-1230

নারীর ক্ষমতায়ন আসলে কী?

নারীর ক্ষমতায়ন আসলে কী?

এটি একটি দিবস মাত্র নয়। একটি দিন উদযাপন শেষে ঘরে ফেরার বিষয়ও নয়। নারী দিবস পালনের ঘোষণা যখন হয়েছে, তার থেকে একশ' বছরের বেশি সময় পার হয়ে গেছে। এখনও এ দিবস পালনের অর্থ, যে লক্ষ্য সামনে রেখে দিবসটি উদযাপন শুরু হয়েছিল সে লক্ষ্য অর্জিত হয়নি। বিশ্বজুড়ে প্রতিটি দেশের ক্ষেত্রে এটি একটি কঠিন সত্য।


বাংলাদেশে এ বছরের প্রতিপাদ্য বিষয় :নারীর ক্ষমতায়ন মানবতার উন্নয়ন।
আসলে ক্ষমতায়ন কী?
ক্ষমতায়ন নারী-পুরুষের পূর্ণাঙ্গ জীবনমান অর্জনের ব্যাখ্যা। অর্থাৎ ব্যক্তির নিজ জীবন ব্যক্তি কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে তা ঠিক করা। পেশাগত দক্ষতা অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় যোগ্যতা অর্জন করা। ক্ষমতায়ন ব্যক্তির ভেতরে আত্মবিশ্বাস দৃঢ় করে, যার দ্বারা সে সমস্যা সমাধান করতে শেখে। পরমুখাপেক্ষী না হয়ে স্বনির্ভর হয়। এভাবে একজন নারী বা পুরুষ যখন জীবন জিজ্ঞাসার মতামত গ্রহণে ক্ষমতার অধিকারী হয় তখন মনে করা হয় তার ক্ষমতায়ন হয়েছে।
ক্ষমতায়ন কার্যকর করার জন্য তিনটি পর্যায়কে বিবেচনা করা হয়। যেমন ব্যক্তিগত। এ পর্যায়ে বিবেচিত হয় ব্যক্তির আত্মবিশ্বাস ও সামর্থ্যের ধারণা। অন্যটি সম্পর্ক। এ পর্যায়ে দেখা হয়, ব্যক্তির সম্পর্কযুক্ত ক্ষমতার সামর্থ্য। অর্থাৎ ব্যক্তি কতটা মধ্যস্থতাকারী ও অন্যের ওপর প্রভাব বিস্তারে কতটা সমর্থ। তৃতীয়টি সামষ্টিক। এ পর্যায়ে বিবেচিত হয় একসঙ্গে কাজ করার দক্ষতা। অর্থাৎ বড় আকারে প্রভাব বিস্তার ও তার ফল লাভের জন্য একসঙ্গে সক্রিয় থাকার সামর্থ্য। এ ক্ষেত্রগুলো বিবেচনা করে নির্ধারিত করা যায় ক্ষমতায়নের মাত্রা।
এ ক্ষমতা অর্জন পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র থেকে বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়। এর সঙ্গে বেঁচে থাকার নানা ব্যবস্থা গভীরভাবে জড়িত। বিশেষ করে নারীর ক্ষেত্রে বিষয়টি আরও জটিল। নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে কি-না তা বুঝতে হলে দেখতে হয় সম্পদের ওপর নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে কি-না। সম্পদ নিয়ন্ত্রণে নারী সক্ষম কি-না অর্থাৎ নারী নিজে সম্পদ নিয়ন্ত্রণ করছে কি-না। বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফল নারী ভোগ করতে পারছে কি-না। অর্থাৎ নারী সরাসরিভাবে উন্নয়নের সুফলভোগী কি-না।
নারীর ক্ষমতায়নকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়। যেমন_ অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন, সামাজিক ক্ষমতায়ন ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন। অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন বলতে বোঝায় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের মূল ধারায় নারীর পূর্ণ অংশগ্রহণ। এর পূর্ণ ব্যাখ্যায় বলা যায়, সিদ্ধান্ত গ্রহণ, বাস্তবায়ন, অভিগম্যতা, নিয়ন্ত্রণ এবং সমতার ভিত্তিতে সুফল ভোগে নারীর পূর্ণ মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হওয়া। সামাজিক ক্ষমতায়ন বলতে নারীর অধিকার ভোগের বিষয়টি প্রথমে আসে। সমাজে নারী কী ধরনের ভূমিকা পালন করতে পারে এবং সে ভূমিকা পালনে তার ক্ষমতার চর্চা কতটা গুরুত্বপূর্ণ সে বিষয়টি বোঝায়। রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন হলো রাজনীতি চর্চায় নারীর পূর্ণ অংশগ্রহণ। ভোট প্রদান, নির্বাচনে অংশগ্রহণ, রাজনৈতিক দলে সমতার জায়গা অর্জন কতটুকু নিশ্চিত তা বোঝায়। এসব জায়গায় নারী বৈষম্যের শিকার বলে পুরুষের পাশাপাশি নারীর ক্ষমতায়ন একই অর্থে ব্যাখ্যা করা যায় না। সেজন্য ক্ষমতায়নের ধারণা পুরুষের জন্য এক রকম, নারীর জন্য অন্য রকম। নারীর ক্ষমতায়ন সমতাভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থার প্রধান দিক।
একথা সবাই জানেন যে, ক্ষমতায়ন কোনো মানবিক দর্শন নয়। নারী বা পুরুষ যে-ই হোন না কেন, শুভবুদ্ধিসম্পন্ন ব্যক্তি না হলে ক্ষমতায়নের অপব্যবহার ঘটে। সেটি যথেচ্ছাচারেও চলে যায়। তাই বলতে হয়, নারীর ক্ষমতায়নের পাশাপাশি বিকাশ ঘটুক নারীর শুভ চেতনার দীপ্তির। শুধু স্লোগানসর্বস্ব দিবস
পালন যেন নারীকে নতুনভাবে পিছু ঠেলে না দেয়।

সেলিনা হোসেন : কথাসাহিত্যিক : প্রকাশক, দৈনিক সমকাল

© 2017 Golden Femina. Developed by Optimo Solution